জোরপূর্বক যৌন নির্যাতন করায় পুরুষাঙ্গ কেটে স্বামীকে হত্যা করলো স্ত্রী

অপরাধ ও দুর্নীতি

নাটোরের গুরুদাসপুরের মশিন্দা ইউনিয়নের মাঝপাড়া গ্রামে কাবিল হোসেন(২৫) কে যৌনাঙ্গ কর্তন করে হত্যার অভিযোগ উঠেছে স্ত্রী রুমি খাতুন(১৫) এর বিরুদ্ধে।

এ ব্যাপারে স্থানীয় সূত্র থেকে জানা যায়, ৬ মাস আগে কাবিল ও রুমির বিয়ে হয়। কাবিলের বাড়ি চাটমোহর উপজেলার ধানকুরিয়া গ্রামের মো.নওশের বিশ্বাসের ছেলে এবং রুমির বাড়ি গুরুদাসপুর উপজেলার মশিন্দা ইউনিয়নের মাঝপাড়া গ্রামের মৃত মকছেদ আলীর মেয়ে।

গতকাল শুক্রবার কাবিল বিশ্বাস মাশিন্দা মাঝপাড়া গ্রামে শ্বশুর বাড়িতে বেড়াতে যান। রাতে স্ত্রীকে শারীরিক সম্পর্কের আহ্বান জানালে কাবিলের আহ্বান নাকচ করে দেয় রুমা। এরপর দুজনের মধ্যে কথা কাটাকাটি শুরু হয়।

কিন্তু কাবিল একপর্যায়ে জোরপূর্বক রুমার সাথে শারিরীক সম্পর্ক স্থাপনের চেষ্টাকালে স্ত্রী রুমা খাতুন ধারালো অস্ত্র দিয়ে স্বামী কাবিল বিশ্বাসের লিঙ্গ কেটে ফেলেন। আর এতে ঘটনাস্থলেই কাবিল বিশ্বাসের মৃত্যু হয়।

এ ব্যাপারে গুরুদাসপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো.সেলিম রেজা ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ‘স্বামী স্ত্রীর মধ্যে মন মালিন্য হওয়ায় শুক্রবার মধ্য রাতে স্ত্রী রুমি তার স্বামী হাবিল হোসেনের যৌনাঙ্গ কর্তন করে। কর্তন করার কিছুক্ষন পরেই হাবিল মারা যায়। পরে সকালে উঠে বাড়ির লোকজন জানতে পেরে গুরুদাসপুর থানা পুলিশকে খবর দেয়ওয়ার পরে স্ত্রী রুমি খাতুনকে আটক করা হয়েছে এবং লাশ ময়না তদন্তের জন্য নাটোর মর্গে পাঠানো হবে।’