আইপিএলের সেরা একাদশ

খেলাধুলা

ঝাঁ চকচকে জার্সি, দেশবিদেশের ক্রিকেটারদের রমরমা। এ যেন সত্যিই চাঁদের হাট। গ্ল্যামারাস এই ট্রফির সেরা তারকা কারা হলেন? কাদের বলা যায় বেস্ট অব দ্য টুর্নামেন্ট? সেরার তালিকায় কারা থাকতে পারেন২০১৯ এ ‘ব্যাক উইথ আ ব্যাং’ হল ডেভিড ওয়ার্নারের।সানরাইজার্স হায়দরাবাদের ওপেনার ডেভিড ওয়ার্নার। তিনিও পাচ্ছেন ১০ লক্ষ টাকা। ১২ ম্যাচে ৬৯২ রান করে অজি ওপেনার সবার আগে। গড় ৭৯.২০। অরেঞ্জ ক্যাপ পেলেন তিনি।

১৪ ম্যাচে ৫৯৩ রান করেছেন আইপিএলের ‘স্টাইলিশ প্লেয়ার’ লোকেশ রাহুল। গড় ৫৩.৯০। কিংস ইলেভেন পঞ্জাবের হয়ে দুর্দান্ত পারফরম্যান্স ছিল তাঁর।দিল্লি ক্যাপিটালসের ক্যাপ্টেন শ্রেয়স আইয়ার। মিডল অর্ডারে নেমে ভরসাও দিয়েছেন। ১৬ ম্যাচে ৪৬৩ রান করেছেন তিনি।দিল্লি ক্যাপিটালসের হয়ে চলতি বছের ঋষভ পন্থ সবার মন জয় করে নিয়েছেন। এই উইকেটকিপার-ব্যাটসম্যান ১৬ ম্যাচে ৪৮৮ রান করেছেন। স্ট্রাইক রেট ছিল ১৬২.৬৬। গড় ৩৭.৫৩। মুম্বই ইন্ডিয়ানসের বিরুদ্ধে ৭৮ রানের ইনিংসটি মনে রাখবেন ক্রিকেটপ্রেমীরা।মহেন্দ্র সিংহ ধোনি কিন্তু বুড়ো হাড়ে ভেল্কি দেখালেন। চেন্নাই সুপার কিংস রানার্স আপ হলেও ১৫ ম্যাচে ৪১৬ রান করেছেন তিনি। গড় ৮৩.২০। ডেথ ওভারেও তাঁর পারফরম্যান্স ছিল মারাত্মক।

বাহুবলী আন্দ্রে রাসেল চলতি বছরে যেন কলকাতা নাইট রাইডার্সের স্তম্ভ। ১৪ ম্যাচে ৫১০ রান করেন তিনি। স্ট্রাইক রেট ২০৪.৮১। ১১টি উইকেটও পেয়েছেন। দুটি পুরস্কার ও একটি গাড়িও পেয়েছেন।হার্দিক পান্ডে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের হয়ে ডেথ ওভারে চমৎকার ক্যামিওগুলি খেলেছেন। ২৫ বছরের তরুণ ১৬ ম্যাচে ৪০২ রান করেছেন। স্ট্রাইক রেট ১৯১.৪২, ১৪টি উইকেটও রয়েছে ২৫ বছরের অলরাউন্ডারের দখলে।শ্রেয়স গোপাল রাজস্থান রয়্যালসের এক জন ভরসাযোগ্য ক্রিকেটার। ১৪ ম্যাচে ২০টি উইকেট পেয়েছেন। গড় ১৭.৩৫। ইকনমি রেট ৭.২২। লোয়ার অর্ডারে ক্যামিওগুলিও ছিল চমৎকার।

কাগিসো রাবাডা দিল্লি ক্যাপিটালসের অপর এক মুখ। ১২ ম্যাচে ২৫টি উইকেট পেয়েছেন তিনি। গড় ১৪.৭২। ইকনমি রেট ৭.৮২।তিন ফরম্যাটের ক্রিকেটেই যিনি সিদ্ধহস্ত, সেই যশপ্রীত বুমরা ছিলেন মুম্বাই ইন্ডিয়ানসের পেস স্তম্ভ। ১৬ ম্যাচে ১৯টি উইকেট পেয়েছেন। গড় ২১.৫২। ইকনমি রেট ৬.৬৩। বুমরার স্পেলে ভর করে টুর্নামেন্ট জিতে নিল মুম্বাই।বুড়ো হাড়ে ভেল্কি দেখালেন চেন্নাই সুপার কিংসের ইমরান তাহিরও। ১৭ ম্যাচে ২৬টি উইকেট নিয়েছেন তিনি। গড় ১৬.৫৭। ইকনমি রেট ৬.৬৯। লেগস্পিনিংয়ের জাদুতে বিপক্ষের মিডল অর্ডারের ব্যাটসম্যানদের ফিরিয়ে দিয়েছেন অনায়াসেই। পার্পল ক্যাপটিও তাঁরই দখলে এল।