বরের ১৮, কনের ১৪; বিয়ে পরালেন ১৭ বছরের ইমাম!

অপরাধ ও দুর্নীতি

ঝালকাঠির রাজাপুর উপজেলার বড়ইয়া ইউনিয়নের আদাখোলা (ওয়ার্ড-২) এলাকায় সম্প্রতি এক চাঞ্চল্যকর ঘটনা ঘটেছে। গ্রাম পুলিশ হারুন হাওলাদারের ছেলে মো: মাসুম হাওলাদার (১৮) এর সাথে একই ইউনিয়নের চল্লিশকাউনিয়া এলাকার আব্দুল শুক্কুর হাওলাদারের মেয়ে মোছা: মীম আক্তারকে (১৪) পারিবারিক ভাবে বাল্য বিবাহ দেন হারুন হাওলাদার।

আর ধর্মীয় মতে এ বিবাহ পড়ান স্থানীয় এমদাদুল হুজুরের ছেলে মো: মঈনুল ইসলাম যার বয়স বর্তমানে ১৭ বছর।

এ ব্যাপারে মঈনুলের কাছে জানতে চাইলে তিনি জানান, ছেলের বাবা গ্রাম পুলিশ হারুন হাওলাদার জোরপূর্বক আমাকে ধরে নিয়ে গিয়ে বাল্য বিবাহ পড়াতে বাধ্য করেন।

এ বিষয়ে মেয়ের বাবার কাছে জানতে চাইলে তিনি জানান, গ্রাম পুলিশ হারুন হাওলাদারের বাড়িতে আমার মেয়ে চলে গেছে এমন খবর পেয়ে আমরা মেয়েকে বাড়িতে ফিড়িয়ে আনতে যাই। তখন গ্রাম পুলিশ হারুন হাওলাদার আমার মেয়েকে আমাদের হাতে তুলে না দিয়ে এই বাল্য বিবাহ দিতে আমাদেরকে বাধ্য করেন।

বরের বাবা গ্রাম পুলিশ হারুন হাওলাদারের কাছে এ ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি জানান, আমার বাড়িতে চলে আসা মীম আক্তারের জীবন বাঁচাতে আমি এ বাল্য বিবাহ দিয়েছি।

বাংলাদেশ সরকারের বাল্য বিবাহের আইনকে তোয়াক্কা না করে আইনের সহযোগী ব্যক্তি হয়ে গ্রাম পুলিশ হারুন হাওলাদার নিজের অপ্রাপ্ত বয়স্ক ছেলের সাথে ১৪ বছর বয়সের মেয়ে মীমের বিবাহ দিলেন একজন ১৭ বছরের ঈমামকে দিয়ে।

এ ঘটনায় জনমনে প্রশ্ন যদি আইনের লোক হয়ে আইন ভঙ্গ করে তাহলে আইনের রক্ষা হবে কি ভাবে?